ভ্যাকসিনের গণতন্ত্রায়ন

গোটা দুনিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে করোনা ভাইরাস। উত্তর থেকে দক্ষিণ, ধনী থেকে গরিব কোন দেশ মুক্তি পায়নি এই মহামারী থেকে। এর ফলে স্তব্ধ হয়ে পড়েছে অর্থনীতির চাকা। মৃত্যু ঝুঁকির মুখোমুখি সব মানুষ। ভ্যাকসিন আসার আগ পর্যন্ত বিশ্বনেতাদের কপালের ভাজ সরার উপক্রম নেই। ভ্যাকসিন নেয়ার সুবিধা হলো, এতে একদিকে যেমন নিজের আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকেনা, অন্যদিকে ছড়িয়ে পড়ার আশংকাও প্রবলভাবে কমিয়ে দেয়। যেটা হার্ড ইমিউনিটি অর্জনের জন্য অত্যাবশ্যক। তাই সবার মনে একই চাওয়া – কবে আসবে ভ্যাকসিন? সংশ্লিষ্টরা বলছেন ১২ থেকে ১৮ মাস পর্যন্ত লেগে যেতে পারে। যারা এটাকে বেশ দেরি মনে করছেন তাদের জানিয়ে রাখি, সর্বশেষ ২০১৫ সালের জিকা ভাইরাসের সময় ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য একটা সম্ভাব্য ভ্যাকসিন পেতেই লেগে গিয়েছিলো সাত মাস। সে তুলনায় এই কোভিড-১৯ এর জিন রহস্য উন্মোচনে লেগেছে শুধু চারমাস। আর সেটা হয়ে যাওয়ার মাত্র ৬৪ দিনের মাথায় চীন প্রথমবারের মতো সম্ভাব্য এক ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে পাঠাতে সক্ষম হয়।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, এখন পর্যন্ত দুটি ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পথে। ক্লিনিক্যাল ইভ্যালুয়েশনে আছে আরও অন্তত ৫০টি সম্ভাব্য ভ্যাকসিন। সবচেয়ে জোরেসোরে এবং বড় পরিসরে যারা কাজ করছেন, জনসন এন্ড জনসন তাদের অন্যতম। গতো মার্চ মাসে তারা মার্কিন সরকারের সাথে ১ বিলিয়ন ডলারের চুক্তি সই করেছে যার লক্ষ্য বিশ্বব্যাপী ১ বিলিয়ন ডোজের সমপরিমাণ ভ্যাকসিন উতপাদনে যাওয়া। তারা জানিয়েছেন, প্রতি ডোজ ভ্যাকসিনের মূল্য পড়তে পারে ১০ ডলারের মতো। ব্রিটিশ অ্যামেরিকান টোব্যাকোও তাদের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ক্যান্টাকি বায়োপ্রোসেসিং এর সহযোগিতায় ভ্যাকসিন আবিষ্কার ও নিজস্ব দ্রুত উৎপাদনশীল প্ল্যান্ট ব্যবহার করে উৎপাদনের আগ্রহ দেখিয়েছে। তবে, ব্যাট এর মতো তামাকজাতকারী প্রতিষ্ঠানের ভ্যাকসিন উৎপাদনে আইনগত সম্মতি পাওয়া প্রধান বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে নিঃসন্দেহে।

ধনী দেশগুলোর পর্যাপ্ত বরাদ্ধ সব নাগরিককের জন্য ভ্যাকসিন উৎপাদন ও উন্নত অবকাঠামো সবাইকে দ্রুত ভ্যাকসিনের আওতায় আনতে পারবে। কিন্তু অর্থ ও অবকাঠামো – এই দুই দিক থেকেই পিছিয়ে থাকা দক্ষিনের দেশগুলোতে আসতে কতো দিন লাগবে সেটা চিন্তার বিষয়। আমরা দেখতে পেয়েছি শুরু থেকেই বিজ্ঞানীরা একসাথে কাজ করে উচ্চ মনুষ্যত্বের পরিচয় দিয়েছেন। ভ্যাকসিন সংশ্লিষ্ট উদ্ভাবনগুলো সবার আগে জার্নালে প্রকাশ করে খ্যাতি অর্জনের চিন্তাকে বাদ দিয়ে অন্য বিজ্ঞানীদের সাথে ভাগাভাগি করে গবেষণা এগিয়ে নেয়াকে বেশী গুরুত্ব দিয়েছেন। বিশ্বনেতারা করোনা ছড়িয়ে পড়া ঠেকাতে বাজেভাবে ব্যর্থ হয়েছেন। অন্তত এইবার কি পারবেন একটু আশার আলো দেখাতে? সেটা সময় বলবে। তবে আগের একটা উদহারন টানা যায়। ২০০৯ সালে প্রথম ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিন উৎপাদনে যায় অস্ট্রেলিয়া। কিন্তু দুঃখজনকভাবে সে দেশের সরকার বিদেশে রপ্তানির বদলে নিজের সব নাগরিকদের জন্য নিশ্চিতে চাপ প্রয়োগ করে। এখনো পর্যন্ত কোন দেশ এবিষয়ে আইনগত কোন পরিবর্তন এনেছে কিনা আমার জানা নেই। যদি তাই হয়ে থাকে, তাহলে গোটা বিশ্ব আবারও অনিশ্চয়তার মুখে পড়বে।

শুধু কি ন্যায্যতার বিচারে দরিদ্র দেশে দ্রুত ভ্যাকসিন পৌঁছানো জরুরী? মোটেও না। দরিদ্র দেশগুলোতে দেরিতে ভ্যাকসিন পৌঁছালে উন্নত দেশও সমস্যায় পড়বে। এক গবেষণায় দেখা গেছে, যেকোন দুটি দরিদ্র দেশে ভ্যাকসিন ৩০দিন পর পৌঁছালে অন্যদুটি উন্নত দেশে আক্রান্তের হার ২.৭৫% বৃদ্ধি পেতে পারে। তাহলে বাঁধা কাটিয়ে উঠতে এখন থেকে কি প্রস্তুতি নেয়া যেতে পারে? দরিদ্র দেশের সরকারগুলোর আর্থিক সক্ষমতা নেই সবার জন্য ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করার। অন্যদিকে দুর্বল অবকাঠামোর কারণে সবার কাছে পৌঁছে দেয়া সত্যিই কঠিন হবে। সরকার এককালীন না হলেও ধাপে ধাপে অর্থের সংস্থান করতে পারে। তাই তাদের কথা বিবেচনা করে প্রয়োজনীয় ঋণ নিশ্চিত করতে হবে। তাছাড়াও দরিদ্র দেশগুলোর প্রত্যন্ত অঞ্চলের ক্লিনিকগুলোতে পর্যাপ্ত ফ্রিজিং ব্যবস্থা কিংবা বিদ্যুতের মতো নির্ভরযোগ্য অবকাঠামো তৈরিতে মনোযোগী হতে হবে। যেহেতু ভ্যাকসিন কুক্ষিগত করার একটা সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে, তাই সময় থাকতে এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট আইনের পরিবর্তন ও প্রয়োজনে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নেতৃত্বে চুক্তি সই হতে পারে।

কিন্তু সমস্যা হলো, যদি অধিকাংশ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদনে মনোযোগী হয়, তাহলে ইনফ্লুয়েঞ্জা, হাম বা রুবেলার মতো অন্য রোগের ভ্যাকসিন উৎপাদনে ভাটা পড়বে। সে সুযোগে সেসব রোগগুলো নতুন করে বাড়ার সম্ভাবনা তৈরি হবে কিনা সেটাও বিবেচনায় রাখা প্রয়োজন। যেহেতু আমাদের এখনো করোনা ভ্যাকসিন হাতে আসতে আরও বছর দেড়েক সময় আছে, এর মধ্যে সম্ভাব্য সমস্যা থেকে রক্ষায় উদ্যোগ নেয়া যেতে পারে। উল্লিখিত বিষয় সমূহে কর্তৃপক্ষের এখনই কাজ শুরু করা প্রয়োজন। অন্যথায়, এতোদিনে সমস্ত ত্যাগ, কষ্ট আর পরিশ্রম ব্যর্থতায় পর্যবসিত হবে।   

বাংলাদেশকে নিয়ে আমি আশাবাদী। আমাদের আছে ব্র্যাকের মতো মানুষের সাথে মিশে থাকা এনজিও। আছে ঘরে ঘরে পোলিওর টিকা পৌঁছে দেয়ার অভিজ্ঞতা। আছে উদ্যোগী তরুণ। আছে বিদ্যানন্দের মতো জানপ্রান ঢেলে কাজ করার লোক। আমরা পারবোই ইনশাল্লাহ।

One Reply to “ভ্যাকসিনের গণতন্ত্রায়ন”

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *