In 2020, social media will be less social

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা নাটকীয়তা পেরিয়ে এলো ২০২০। ইউএস প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের বিতর্কিত বিজ্ঞাপন, ক্রমাগত সংবেদনশীল তথ্য ফাঁস কিংবা মূলধারার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কাছে হুমকি হয়ে টিকটকের আবির্ভাব এবং বীরদর্পে এগিয়ে চলতে থাকা… কম নাটকীয়তা নয় নিশ্চয়ই।

ক্রমাগত এসব সমূল পরিবর্তনে মানুষ কিভাবে নিবে আসছে বছর? সম্প্রতি হটস্যুটের করা জরিপের ফলাফল বিশ্লেষণ থেকে ২০২০ সালের জন্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম কেন্দ্রিক উল্লেখযোগ্য কিছু ধারণা তুলে ধরা হলো…

SOCIAL MEDIA GETS LESS SOCIAL

বিতর্ক যেনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর পিছু ছাড়ছে না। মানুষেরইবা এতো ঠেকা পড়লো কিসে? তাই তারা বস্তুত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম থেকে সরে আসছে। তাই তারা বেছে নিচ্ছে তুলনামূলক অধিক গোপনীয়তা রক্ষাকারী ক্লোসড গ্রুপ বা হোয়াটসএপ এর মতো শুধু বার্তা আদান-প্রদানের মাধ্যমগুলো। জরিপ বলছে ৬৩% মানুষ তাদের কনটেন্টগুলো প্রাইভেট যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভাগাভাগি করতে অধিক স্বাচ্ছন্দ বোধ করছে যা ২০২০ সালে আরও বাড়তে থাকবে। ফেসবুকের প্রধান মার্ক জাকারবার্গ একই কথা বলেছেন ২০১৮ সালে তাদের বার্ষিক ডেভেলপার সম্মেলন এফএইট এ। তিনি বলেছেন ‘দ্যা ফিউচার ইজ প্রাইভেট’। ফেসবুকের প্রাইভেট মেসেজিং, মাইডে বা ছোট ছোট গ্রুপের অত্যন্ত দ্রুত বৃদ্ধিও তাই বলে।

তাই চাহিদার সাথে তাল মিলিয়ে ইন্সটাগ্রামের ক্যামেরা ফার্স্ট মেসেজিং এপ ‘থ্রেড’, লিংকডইনের ‘টিমমেট’ বা ফেসবুকের নতুন ‘পোর্টাল ডিভাইসের’ মতো বিষয়গুলো ইন্টোডিউস করানো হচ্ছে।

COMPANIES GROW A BACKBONE ON SOCIAL MEDIA 

টুইটার থেকে শুরু হওয়া #মিটু আন্দোলন গোটা দুনিয়াতে সাড়া ফেলে দিয়েছে। হাটে ভেঙ্গেছে অসংখ্য হাড়ি। বেরিয়েছে মস্তবড় বিড়ালগুলো। সরেছে অনেকের মুখোশ। এমন যখন পরিস্থিতি, তখন নড়েচড়ে বসেছে দুনিয়াটা। ভাবছে নতুন করে। জরিপ বলছে ৭৩% মানুষ বিগত বছরের চেয়ে অধিক সচেতন কোম্পানি এথিকস এর ব্যাপারে। শুধু তাই নয়, ৬৭% মানুষ কোন কোম্পানি ভ্যালু’র সাথে বনিবনা না হলে সে কোম্পানিতে কাজই করতে আগ্রহী না।

তাই আসছে কোম্পানিগুলো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোকে আরও গুরুত্বসহকারে বিবেচনা করবে। খুব চেষ্টা করবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজেদের আরও দারুনভাবে তুলে ধরার। ‘লেভি স্ট্রোস’ এর নিউইয়র্ক স্টক এক্সচেঞ্জে চমৎকার অভিষেকের বিষয়টা দেখা যাক… পরিবেশ সচেতনতা, অস্ত্র নিয়ন্ত্রন আইন, এলজিবিটিকিউ অধিকার – এসব বিষব বিষয়ে সচেতন পদক্ষেপ ও ভূমিকা তাদের এই সুবিধা এনে দিয়েছে। অন্যদিকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পেপসি কিংবা জিলেট এর সাম্প্রতিক ব্যর্থ ক্যাম্পেইনগুলোর দিকে তাকালেই বুঝা যাবে আগের মতো আর অগভীর বিষয়গুলো মানুষকে কাছে টানতে পারছে না।

TIKTOK EXPLODES . . . ONE WAY OR THE OTHER

অনেকটা হুট করেই টিকটক আমাদের নজরে আসে তাদের লিপসিংক ভিডিও দিয়ে। যদিও প্রথমে খুব হাল্কাভাবেই টিকটক নিয়েছিলো, কিন্তু পরে বুঝা গেছে বিষ্যটা আসলে ততটা হাল্কা নয়। মার্ক জাকারবার্গ ও তার ফেসবুক বেশ অস্বস্থিতে আছে টিকটককে নিয়ে। সব এপস্টোরে দীর্ঘদিন ধরে টিকটক আছে শীর্ষ ৩ এর মধ্যে। শুধু তাই নয়, তাদের দৈনিক সক্রিয় ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৮০০ মিলিয়ন। কি এমন জাদু যা তাদের অল্প সময়ে গগনচুম্বী জনপ্রিয়তা দিয়েছে? হতে পারে সেটা বিজ্ঞাপনের পেছনে তাদের কাড়ি কাড়ি টাকা ব্যয়। দৈনিক শুধু বিজ্ঞাপনের পেছনেই ব্যয় করছে ৩মিলিয়ন ডলার! আবার টার্গেট মার্কেট নির্বাচনে সুকৌশলে কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার ব্যবহারও এটার কারন হতে পারে। তবে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ যেটা, ব্যবহারকারীদের ইচ্ছেমতো ব্যবহার করার স্বাধীনতা, সৃজনশীলতা প্রকাশের সুযোগ ও সাথে একটু মজা করার সুযোগই তাদের এমন জনপ্রিয়তা দিয়েছে।

প্রশ্নহলো ২০২০ সালে টিকটক কি পারবে এমন জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে? চীনা কোম্পানি হওয়াতে ব্যবহারকারিরা অবশ্য বেশ সন্ধিহান তাদের কাছ থেকে নেয়া তথ্যগুলো টিকটিক কিভাবে ব্যবহার করবে সে ব্যাপারে। প্রকৃতপক্ষ্যে কিছু দৃষ্টিকোণ থেকে বিবেচনা করলে টিকটক যে হারে নতুন ব্যবহারকারী পাচ্ছে, প্রায় একই হারে হারাচ্ছেও।

তালমিলিয়ে চলাটা টেক জায়ান্টদের কাছে নতুন কিছু নয়। টিকটকের ক্রমধাবমান জনপ্রিয়তা দেখে ২০১৮ সালে ফেসবুক ‘লেসো’ নামের একটা একই ধরনের এপ শুরু করেছিলো যা বলতে গেলে মোটেও জায়গা করে নিতে পারেনি। তবে ফেসবুকের মালিকানাধীন আরেক প্রতিষ্ঠান ইন্সটাগ্রামের টিকটক এর ক্লোন সার্ভিস ‘রিল’ মনে হয় সুবিধা করতে পারছে। ২০১৯ সালের শেষ কোয়ার্টার পর্যন্ত তাদের ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ব্যবহারকারী রয়েছে। দেখা যাক…

THE INCENTIVE SYSTEM ON SOCIAL MEDIA (FINALLY) EVOLVES

কোথাও যাওয়ার পথে একজায়গায় ভিড় দেখলে আমরা এক মুহূর্তের জন্য অন্তত দেখে যাই আসলে কি হচ্ছে সেটা দেখার জন্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও আমরা সেরকম। যে পোস্টে লাইক, লাভ, ওয়াও আব কমেন্ট বেশী সেটাই দেখি। এভাবে আমরা নিজেদের হারিয়ে ফেলছি অন্যের আগ্রহের গহীনে। বিষয়টা নিয়ে অবশ্য বেশ সক্রিয় উদ্বেগ আর উদ্যোগ দেখা দিয়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর।

সম্প্রতি কিছু অঞ্চলে প্রথমিকভাবে পোস্টে পাবলিকলি তাদের লাইক বা কমেন্ট সংখ্যা দেখানো বন্ধ করেছে। উদ্দেশ্য এংগেইজমেন্টগুলোকে আরও অর্থবহ করা। ফেসবুক, টুইটারও একই পথে আগাচ্ছে ধীরে ধীরে। যার ফলস্বরূপ মানুষের আগ্রহের বৈচিত্রতা দেখা যাবে এবং ইনফ্লয়েন্সারদের জনপ্রিয়তায় বিশাল ধ্বস নামবে।

AD OVERLOAD REACHES A CRISIS POINT

টিভি থেকে প্রজম্নের অনলাইনমুখী হওয়ার দুটো কারন। ব্যস্ততা বেড়ে যাওয়ায় সুবিধা মতো সময়ে পছন্দের কনটেন্ট দেখা এবং যতোটা সম্ভব বিজ্ঞাপন এড়িয়ে যাওয়া। বিজ্ঞাপন কতোটা বিরক্তিকর সেটা বুঝা যায় বাংলাদেশ-ভারতের একদিনের ম্যাচের ফাঁকে ফাঁকে। একই ঝামেলা বোধহয় অনলাইনেও আমাদের জেঁকে বসেছে। মিসলিডিং বিজ্ঞাপনের পরিনতি যে ভয়াবহ হতে পারে সেটা দেখা যায় মার্কিন নির্বাচনের দিকে তাকালে। সে অন্য এক বিশাল কাহিনী।

বলা হচ্ছে অনলাইনে বিজ্ঞাপন এখন তার তুঙ্গে অবস্থান করছে। শুধু মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেই ৮৬ মিলিয়ন ব্যবহারকারী এডব্লকার দিয়ে ২০ বিলিয়ন ডলার মূল্যের বিজ্ঞাপন এড়িয়ে চলেন। গবেষনা বলে, ব্যবহারকারীরা মোটেও বিজ্ঞাপন পছন্দ করেন না।

কিন্তু ঝামেলা বিজ্ঞাপন থাকলে এতো বড় কোম্পানি চলবে কিভাবে? ফেসবুকের মোট আয়ের ৯৮% আর টুইটারের ৮৫% আসে বিজ্ঞাপন থেকে। কোন বিকল্প কি নেই? অবশ্যই আছে। আয়ের উৎসের বিকেন্দ্রিকরন অবশ্য প্রয়োজন। উইকিপিডিয়ার প্রতিষ্ঠাতা জিমি ওয়েলস ডব্লিউটি সোশ্যাল নামে ফেসবুকের প্রতিদ্বন্দ্বী একটি প্ল্যাটফর্ম দাড় করানোর চেষ্টা করছেন যার আয়ের প্রধান উৎস হলো ডোনেশন। আবার উইচ্যাট বা কিউকিউ এর প্যারেন্ট কোম্পানি টেনসেন্ট এর আয়ের মাত্র ১৭% আসে বিজ্ঞাপন থেকে। বাকি আয় আসে গেমিং (৩৭%), ই-কমার্স (২৩%) বা অন্য প্রিমিয়াম ভেল্যু এডেড সার্ভিস (২৪%) থেকে।

মোটাদাগে, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জন্য ২০২০ সাল হতে যাচ্ছে বেশ পরিবর্তনের একটা সময়। ব্যবহারকারী, বিশেষকরে রাজনীতিবিদরা বেশী এবং আরও বেশী প্রত্যাশা করছেন। সময়ের সাথে সাথে আমরা আমাদের এই কানেক্টেড ওয়ার্ল্ডের প্রতিবন্ধকতাগুলোকে আরও আবিষ্কার করছি এবং চেষ্টা করছি দীর্ঘস্থায়ী সমাধান আনতে। তবে সে সমাধান কতোটুকু কার্যকরী বা গ্রহনযোগ্যতা পাবে? সেটা দেখতে হলে অপেক্ষা করতে হবে ২০২০ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচন পর্যন্ত।

ফাস্ট কোম্পানি অবলম্বনে।

ABOUT THE AUTHOR

Ryan Holmes is the CEO of Hootsuite, a social media management system with more than 10 million users. A college dropout, he started a paintball company and pizza restaurant before founding Invoke Media, the company that developed Hootsuite in 2009. Today, Holmes is an authority on the social business revolution, quoted in The New York Times and Wall Street Journal and called upon to speak at TEDx and SXSW Interactive Conferences

How to sound humble but not weak or insecure

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো ক্রমেই আমাদের দৈনন্দিন জীবনের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিনত হয়েছে। কোথাও ঘুরতে গেলাম কিংবা খেতে গেলাম কোন রেস্টুরেন্টে কিন্তু ফেসবুক-ইন্সটাগ্রামে কোন ছবি আপলোড দিলাম না – তা আমরা চিন্তাই করতে পারিনা। উদ্দেশ্য মানুষকে নিজের ক্লাস দেখানো আর বুঝানোর চেষ্টা করা, আরেকজনকে জানাতে চেষ্টা করা নিজে আরেকজন থেকে কতোটা এগিয়ে। অবস্থাটা এমন, আমরা ফেসবুক-ইন্সটাগ্রামে লাইক-কমেন্ট-ফলোয়ার সংখ্যা এসব দেখেই তার সামাজিক অবস্থান পরিমাপ করা শুরু করেছি।

নম্রতা, এমন একটা গুণ যা অন্যকে কাছে টেনে আনে। নম্রতা শব্দটি এসেছে গ্রিক শব্দ ‘হিউমাস’ থেকে যার বাংলা অর্থ দাঁড়ায় ‘পৃথিবী’ – অর্থাৎ ‘ডাউন টু দ্যা আর্থ’। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের এই রমারমা সময়ে নম্রতার বড্য প্রয়োজন।

ঝামেলা হলো, এই সময়ে কেউ নম্রতার চর্চা করতে গেলে বাকিরা তাকে দুর্বল বা অযোগ্য ভেবে থাকতে পারেন। আসলে ব্যাপারটা তার উল্টো। হোক সেটা অফিসে, বা বন্ধুদের সামনে অথবা চাকরীর সাক্ষাৎকারে – নম্রতা আপনাকে অসাধারণ একটা ইম্প্রেশন তৈরি করতে সাহায্য করে।

চলুক দেখে নেয়া যাক এমন কিছু উপায় যা অবস্থানকে পোক্ত রেখে আপনাকে নম্রভাবে উপস্থাপন করবে।

GRACIOUSNESS

সবাই জানে একটা কাজ একা করা যায়না। কাজ করতে গিয়ে বিভিন্ন জন বিভিন্নভাবে অবদান রাখেন। বস, মেন্টর, টিম, কলিগ, ফ্যামিলি, ফ্রেন্ডস – সবাবই কিছু না কিছু ভূমিকা থাকে। তাই নিজের সফলতার গল্প বলার সময় তাদের অবদান স্বীকার করুন, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন।

আমিত্ব পরিহার করুন। পরিবর্তে বলুন আমরা। এতে মনে করতে পারেন আপনার ভূমিকা সঠিকভাবে মূল্যায়িত হচ্ছে না। আসলে ব্যাপারটা তার উল্টো। আমরা বলাটা আপনার ভূমিকাকে বরং বড় করে তুলবে।

চাকরীর সাক্ষাৎকারে বোর্ডে থাকা লোকজন গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করেন আপনার কথায় কথায় আমি আমি করছেন কিনা। আমরা শব্দটার ব্যবহার বুঝায় আপনি কতোটা টিমপ্লেয়ার, আপনি একজন লিডার কিনা। তাই আমি বাদ দিয়ে আমরা চর্চা করা উচিত।

MODESTY

আপনার অর্জনের কথা আপনি অবশ্যই বলবেন। আপনাকে মূল্যায়ন করার জন্য এটা জানানো দরকার। তবে সেক্ষেত্রে একটু সচেতন হতে হবে। এমনভাবে বলতে হবে যাতে মনে না হয় আপনি ফুলিয়ে-ফাপিয়ে বলছেন। একটু হিউমারের আশ্রয় নিলে এমন পরিস্থিতি এড়িয়ে যাওয়া যাবে।

তবে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে, মডেস্টি দেখাতে গিয়ে যাতে আবার আন্ডার এস্টিমেট হয়ে না যায়।

AUTHENTICITY

সম্প্রতি টেসলার সাইবার ট্রাক এর লঞ্চিং এ ইলন মাস্ক কে বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়েছিলো। যদিও দাবী করেছিলেন তার ট্রাকের জানালার কাচ ‘শ্যাটারপ্রুফ’ কিন্তু একটা মেটাল বলের আঘাতেই সবার সামনে কাচ ভেঙ্গে যায়। এটা নিশ্চিত যে ইলন তার প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্টে অনেক সময় ও শ্রম দিয়েছেন। তারপরও এমন একটা ঘটনা ঘটে গেলো, তাও আবার একপ্রকার গোটা দুনিয়ার সামনেই। ইলন তখন সে ঘটনাকে মোটেও ধামাচাপা দেয়ার চেষ্টা করেননি। বরং দোষ স্বীকার করে নিয়েছেন, বিষয়টাকে সবার সামনে বিশ্লেষণ করেছেন।

আপনিও ভূলভ্রান্তির উর্ধে নন। তাই কোন চাকরীর সাক্ষাৎকারে আপনার অর্জন কিংবা গুণগুলো বলার পাশাপাশি সীমাবদ্ধতাগুলোও তুলে ধরুন। এতে তারা আপনাকে অধিকতর যোগ্য মনে করবে। কারন তারা বুঝতে পারবে আপনি সৎ, নিজের সীমাবদ্ধতা সম্পর্কে অবগত এবং সর্বপোরী নিজেকে ভালোভাবে চিনেন।

RESPECT

নেতৃত্বের অন্যতম গুণ হলো শ্রদ্ধাশীলতা। বড় বড় নেতারা সবসময় অন্যকে শ্রদ্ধা করেন। তারা কাউকে নীচু করে দেখেননা। বরং অন্যকে সচেতনভাবে শুনেন এবং বুঝার চেষ্টা করেন। আপনিও তাদের অনুসরন করতে পারেন। সেজন্য আপনাকেও তাদের মতো শুনতে হবে, যা বলবেন তা করতে হবে, জাতপাত নির্বিশেষে সবাইকে সমান চোখে দেখতে হবে।

ফাস্ট কোম্পানি অবলম্বনে অনুদিত।    

ABOUT THE AUTHOR

Judith Humphrey is founder of The Humphrey Group, a premier leadership communications firm headquartered in Toronto. She also recently established EQUOS Corp., a company focused on delivering emotional intelligence training to the fitness, medical, and business sectors

বিদেশে উচ্চশিক্ষা : হাইস্কুল ছাত্রের যা জানা দরকার

সম্প্রতি আমার দিন কাটছে কোরা’তে অদ্ভুত ও দারুণ সব প্রশ্নের উত্তর পড়ে ও মাঝে মাঝে উত্তর দিয়ে। এক পিচ্চির প্রশ্নের উত্তর দিতে গিয়ে লক্ষ্য করলাম লিখতে লিখতে বেশ বড় হয়ে গেছে। তাছাড়াও প্রশ্নটার উত্তর জানতে চান এমন মানুষের সংখ্যা দিনকেদিন বাড়ছে। তাই ভাবলাম, একই উত্তরটা বরং আমার ব্লগেও দিয়ে দিই। মন্দ হয়না।

প্রশ্নটা ছিলো – চট্টগ্রামের এক সরকারি বিদ্যালয়ে পড়ি। আগামী বছর ইনশাআল্লাহ নবম শ্রেণীতে উঠবো। আমি কি এই বয়সে বিদেশের বিদ্যালয়ে পড়ালেখার জন্য আবেদন করতে পারব?

প্রশ্নকর্তা বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয় বলতে গিয়ে কোনভাবে বিদ্যালয় বলে ফেলেছেন কি? যাহোক, যদি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে হয় তাহলে দুটো জিনিস প্রধানত প্রয়োজন – (এক) স্যাট বা এসিটি এর যেকোনোটা দেয়া এবং (দুই) আইএলটিএস দেয়া।

প্রথমে স্যাট এর কথায় আসি। স্যাট বা SAT হলো ১৬০০ নম্বরের একটা পরীক্ষা যেটাতে ৪টা ভাগ থাকে। রিডিং, রাইটিং, এবং গনিত। গনিতের অবশ্য দুটো ভাগ আছে। ক্যালকুলেটর সহ এবং ক্যালকুলেটর ছাড়া। এই স্যাট পরীক্ষা নেয়া হয় মূলত আপনার একাডেমিক দক্ষতা দেখার জন্য। চাইলে নিজে নিজে প্রস্তুতি নিতে পারেন। আবার কোচিং এ পড়াও সম্ভব। চট্টগ্রামে আমি হাসনাঈন স্যারের কাছে পড়েছিলাম এটার জন্য। উনি জিইসি মোড়ে, সানমারের উত্তর পাশে পড়ান। তবে পরিক্ষার ফি এবং কোচিং ফি – দুটোই একটু খরচ সাপেক্ষ।

তারপর আসে আইএলটিএস। অনেকেরই ভূল ধারণা থাকে আইএলটিএস সম্পর্কে। ভাবে যে শুধু আইএলটিএস দিয়েই বিদেশে যাওয়া সম্ভব। এ ধারণা পুরোপুরি ভূল না, আবার সঠিকও না। বলছি – আইএলটিএস হলো ভাষাগত দক্ষতা বুঝানোর একটা উপায় মাত্র। এটা মূলধারার পড়াশোনার সাথে সরাসরি সম্পরকিত নয়। তাই এটা দেখে বিশ্ববিদ্যালয়ের আপনার সম্পর্কে পোক ধারণা করা কোন উপায় নেই।

আপনাকে অবশ্যই স্যাট দিতে হবে যদি আপনি বিশ্বের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়গুলো (বিশেষ করে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র) যেমন- হার্ভার্ড, ইয়েল, প্রিন্সটন, এমআইটি এসবে যেতে চান। সাথে বিশ্ববিদ্যালয় সরাসরি না চাইলেও অন্ততপক্ষ্যে সে দেশের ভিস পাওয়ার জন্য হলেও আইএলটিএস দরকার।

আপনি শুধু আইএলটিএস দিয়েও ইউরোপের বেশকিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে যেতে পারেন। তবে সে ক্ষেত্রে তাদের ভাষায় আপনাকে পড়তে হবে। তবে এটা ঠিক যে, সেসব ক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় নিজ গরজেই আপনার জন্য সে দেশের ভাষার কোর্স রাখবে। তবুও নতুন নতুন ভাষা শিখে জীবন চালাতে পারলেও একাডেমিক কাজে কতটুকু ফলদায়ক হবে তা অত্যন্ত চিন্তার বিষয়।

তাছাড়াও আরও অত্যন্ত বিবেচ্য বিষয় হলো সহশিক্ষাক্রমিক কার্যক্রম। বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে গোটা দুনিয়ার সবচেয়ে মেধাবীরা প্রতিযোগিতা করে। তাই, ওখানে দেখা যাবে স্যাট ১৬০০ তে ১৬০০ পেয়েছেন এবং আইএলটিএস এ ৯ এ ৯ পেয়েছেন এমন অনেকেই আবেদন করবেন। তাহলে আপনি কোথায়? এ যায়গায় স্ট্যান্ডআউট করার জায়গা হলো আপনার সহশিক্ষাক্রমিক কার্যক্রম। এটা এতোই গুরুত্বপূর্ণ যে কখনো কখনো সব থেকে বেশী বিবেচনার বিষয় হয়ে দাঁড়ায় ভর্তি বা স্কলারশিপ দুটোর জন্যই। এছাড়াও আবেদন প্রক্রিয়ায় যেসব জায়গায় এসে বা রচনা লিখতে হবে সেখানে বলার মতো কিছু গল্পও তৈরি হয় সহশিক্ষাক্রমিক কার্যক্রমে অংশ নেয়ার মাধ্যমে।

তার মান এই নয় যে আপনাকে ফিজিক্স বা গনিত অলিম্পিয়াডে গোল্ড পেতে হবে। এমন কিছু দেখাতে হবে যেট অর্থবহ। এমনও অনেক ঘটনা আছে যে, ম্যাথ অলিম্পিয়াডে গোল্ড মেডালিস্টকে প্রত্যাখান করা হয়েছে।

আরেকটা বিষয়, ধরুন হার্ভার্ড লিডারশিপ এক্টিভিটিজকে প্রাধান্য দেয়। অন্যদিকে এমআইটি দেয় গবেষনামূলক কাজকে। তাই বিশ্ববিদ্যালয়ে মতিগতিও বুঝতে হবে। তার মানে আবার এটা নয় যে হার্ভার্ড শুধু ফিউচার লিডারদেরই নিবে বা এমআইটি শুধু গনিত পদার্থ অলিম্পিয়াডে মেডালিস্টদেরই নিবে। তাদের ভাষায় – নির্বাচন প্রক্রিয়ায় তারা একটা ব্যালেন্সড টিম তৈরি করার চেষ্টা করে।

আসলে কেউই বলতে পারবেনা আপনি সুযোগ পাবেন কি পাবেন না। শুধু আল্লাহ আর নির্বাচক কমিটি জানেন। শুভকামনা থাকলো।

ফেসবুকে একটা গ্রুপ আছে – Bangladeshis Beyond Border: Undergrad Admission Info Portal এখানে আপনার প্রশ্ন করতে পারেন। আবার ফাইল সেকশানে অসংখ্য সহায়ক ফাইল আছে। সেগুলোও চেক করতে পারেন।

কোরা’তে আমার প্রোফাইল লিংক হলো এটা। ঘুরে আসতে পারেন।