অনলাইনে পরিচয় ১০১

ফেসবুক, টুইটার, লিংকডইন কিংবা মেইল – প্রযুক্তির এই সময়টাতে প্রতিনিয়তই আমরা নতুন মানুষের সাথে পরিচিত হতে হয়। সাধারণ মানুষ তো বটেই, অনেক প্রভাবশালী লোকের সাথেও আপনার শখ্যতা তৈরি হতে পারে। তার জন্য আপনাকে এই ডিজিটাল টুলগুলোর যথাযথ ব্যবহার জানতে হবে। মেনে চলতে কিছু শিষ্টাচার। চলুন দেখে নেয়া যাক কিছু আচরণ যা করা মোটেও উচিৎ নয়।

(১) মেইল পাঠানোর পর অনেকে প্রতিউত্তরের আশায় বসে থাকেন। উদগ্রীব থাকেন মেইল পেয়েছেন কিনা সেটা জানার জন্য। এডাম গ্রান্ট, হোয়ারটন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন প্রফেসর। তার মতে, ইলেকট্রনিক রিটার্ন রিসিপ্ট সেকেলে ধারণা। যেহেতু আপনি মেইলের ডেলিভারি স্ট্যাটাস নোটিফিকেশন পেয়েছেন, আপনার বুঝতে হবে মেইলটা ঠিকঠাক পৌঁছেছে। আর, উত্তর না পেলে মন খারাপের কিছু নেই। কয়েক সপ্তাহ পর আবার পাঠানোর সুযোগ তো আছেই!     

(২) ধরুন আপনার একটা প্রোডাক্ট আছে। যদি একজন ইনফ্লুয়েন্সার আপনার সে প্রোডাক্ট সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেন, নিশ্চয়ই আপনার নিক্রি বেড়ে যাবে? কীভাবে পৌঁছাবেন ইনফ্লুয়েন্সারদের কাছে? আপনার প্রোডাক্ট এবং সাথে এক লাইনে কীভাবে প্রোডাক্টটা তার সাথে সম্পর্কিত সেটা লিখুন। এখানেই শেষ। যদি তিনি আগ্রহ খুঁজে পান, অবশ্যই নিজ দায়িত্বে শেয়ার করবেন।       

(৩) প্রথমবারের মতো কোন এক্সপার্টকে মেইল করে কখনোই আপনার উদ্যোগ, ধারণা বা সেবা সম্পর্কে পরামর্শ চাইতে যাবেন না। এরজন্য দীর্ঘ সম্পর্ক ও জানাশোনা প্রয়োজন যেটা আপনার নেই। আপনি বরং কোন সুনির্দিষ্ট বিষয়ে প্রশ্ন করতে পারেন। জানতে চাইতে পারেন অভিজ্ঞতা বা দৃষ্টিভঙ্গি। তবে পরামর্শ নয়।

(৪) সদ্য পরিচিত হওয়া কাউকে কখনো সাক্ষাতের আমন্ত্রন করবেন না। মাসদুয়েক সময় গড়াতে দিন। তার সুবিধাজনক সময়ে ফোনে কথা বলার অথবা সাক্ষাৎ করার চেষ্টা করুন।

(৫) পরিচয় হতে না হতেই আরেকজনের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতে বলবেন না। তারচেয়ে বরং তাকেই আপনি আপনার প্রয়োজনটার কথা বলুন। যদি মনে করেন, উনিই পছন্দসই একজনকে পরিচয় করিয়ে দিবেন।

এতক্ষণে জানা গেলো কীভাবে পরিচিত হতে হবে সেটা। এখন জানবো, পরিচিত হওয়ার পর কি করবেন না সেটা।

(৬) সুন্দর, মার্জিত উত্তর পেয়ে ভেবে বসবেন না তিনি আপনার সাথে বন্ধুত্ব করতে চান। বারবার মেইল করে ইনবক্স ভর্তি করবেন না। সব প্রশ্ন একজায়গায় লিখুন। পরে মাস শেষে একদিন পাঠিয়ে দিন।

(৭) বলে বেড়াবেন না আপনার সাথে অমুক তমুকের খাতির আছে। নিজে পরিচিত হওয়ার কদিনের মধ্যে আরেকজনকে পরিচয় করিয়ে দিতে যাবেন না। বরং জানতে চাইতে পারেন “একজন আপনার সাথে এই বিষয়ে কথা বলতে চায়। আপনি কি আগ্রহী?”        

(৮) পরিচিত হওয়ার কদিনের মধ্যে একসাথে কাজ করার আমন্ত্রন জানানো অনেকটা “প্রথম ডেটিং’র পরই বিয়ের প্রস্তাব” দেয়ার মতো। তাই আগে আলোচনা করুন। দেখুন এতে দুজনেরই উপকার হয় কিনা।

হোয়ারটন বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞানের অধ্যাপক, এডাম গ্রান্টের ব্যাক্তিগত ব্লগ অবলম্বনে লিখেছেন ইউসুফ মুন্না।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *